Bangladeshi Broadsheet

One stop web portal for Bangladeshies in Australia

Next Text Post New Entry

Why it is like that?

Posted by Mohammad Hassan on December 16, 2013 at 6:05 PM Comments comments (1)

অপরাধ করলে শাস্তি হবে না কেন, এইটা বুজি না। কাদের মোল্লা কি আসলে রাজাকার নন? কিছু মানুষ কিভাবে কাদের মোল্লাকে ভাই সম্মোধন করছেন? তারা ফাসিতে মোটেই খুশি নন। এদের ওয়াল পোস্ট পড়লে যে কেউ এই ফ্লেভারই পাবেন। কেন? এরা কি মনে করছেন 'কাদের মোল্লা আদৌ রাজাকার নন'? এইটাও তারা মুখ ফুটে বলেন না। যেসব রাজাকার এখন জেলে দিন কাটাচ্ছেন তারা কেউই কি আদৌ রাজাকার নন? রাজাকার বলে আসলেই কি কিছু ছিল না? নাকি এইটা বারমুডা ট্রায়ন্গল? বাংলাদেশের মানুষ মনে নরম দেখেই; যারা সর্বজন বিদিত রাজাকার তারা এত দিন বেচে ছিল না?

সবই কি পলিটিক্স? কে আসলে তাহলে রাজাকার? রাজাকার নিজেরাই যদি ওপেন সবার সামনে স্বীকার করতো তাদের ভুল আমার তো ধারণা বাংলাদেশ অন্য ভাবে ভাবত। এরা দিনের পর দিন সেই সুযোগটা নেইনি কেন?

কে না জানে জামাতের যে রকম সাংগঠনিক শক্তি আছে বাংলাদেশের অন্য কোনো বড় দলের সেইরকম কোনো কাঠামোই নেই। তাহলে জামাত কেন আজ ৪৩ বছর বাংলাদেশ হবার পরেও তাদের অতীত কর্মের জন্যে মাফ চাইবে না? এবং যাদের বিচার হওয়া দরকার তাদের বিচারে সাহায্য করবে না? বরং এটি করলে তো তাদের যে সাংগঠনিক শক্তি আছে তা নিয়ে সহজেই বাংলাদেশের মনও পেত। হা, অবশ্যই কালের পরিক্রমায় সব বড় দলেই এখন রাজাকর আছে। কিন্তু যেহেতু সেই সময়ে জামাতের স্ট্যান্ডটাই ছিল বাংলাদেশের বিরুদ্ধে তাই পাবলিক এদের কেই বেশি টার্গেট করবে এইটা বুজতে কি লাগে?

দেখুন রাজনীতি বুজি না। তাই এইসব লিখছি। অব্যশই আওয়ামী সরকার রাজকারের বিচার ইস্যুতে যার পরনাই ব্যাক দিয়েছে, এটাই তো তাদের নির্বাচনে এ জিতবার ট্রাম কার্ড। এরা ভালই জানে পাবলিক এটা চায়। আওয়ামী সরকার তেল গ্যাস এর আন্দোলনে গুলি করেও মানুষ মারবে তাতে এদের ব্যবসা নষ্ট হবে। এইটাও পাবলিক বুজে। বিএনপি থাকলেও স্বার্থে টান পড়লে ভিন্ন কিছুই হবে না। কিন্তু রাজাকার বিচার প্রশ্নে কেন টেনসন নিতে হবে? কেন একটা হওয়াই দরকার কাজে বিবাদ? মনে রাখবেন এই প্রশ্নে এক হলে একটা লোকও হুদাই মরতো না, কোনো মানুষ ছাগু টাইটেল পেতো না। এইগুলান কোনটাই ভালো না। আসুন এক সাথে ভালো কাজ করি।

Please respect those, whom u follow

Posted by Mohammad Hassan on May 30, 2013 at 8:55 PM Comments comments (0)

যখন কারো ভালো দেখি, তাকে ফলো করি। তাকে জানাই, ভাই জানলাম, শিখলাম আপনার কাছ থেকে- ধন্যবাদ আপনাকে। কিন্তু অবাক হই, আমি কাতারের বাইরে। কারণ বেশির ভাগ লোকই আপনার ভালো কাজে কখনো কখনো হয় উপর দিয়ে তর্ক করবে, কিন্তু নিজে প্রয়োজনে বা সময়ে ঠিকই আপনার ধারায় কাজটা করে নিবে। বাইরে স্বীকার করবে না, পাছে লোকে তাকে আপনার থেকে কম ভাবে। এইসব করে কেউই কখনই বড় হয় না। কিন্তু তবু আমাদের দেশের মানুষের মাঝে এই চর্চা জেনে মজ্জাগত। কেন জানি এমনটাই বেশি করে। ভাইরে কাউকে সম্মান করলে কমে না,বাড়ে- এই কথা শুধু জেনে নয় কেবল; প্রাকটিস করলেই মঙ্গল।এতে অন্য যে কেউ আপনাকে একদিন আপনার থেকেও বেশি সম্মান করবার দারুণ অনুপ্রেরণা আপনারই কাছ এমনি এমনি শিখে যাবে। চলুন সম্মান করি সেইসব মানুষদেরকে- যাদের ফলো করলেই নিজের আর সকলেরই ভালো।

When did u last see BD style office environment?

Posted by Mohammad Hassan on May 8, 2013 at 9:40 PM Comments comments (0)

বাইরে ঝলমল রৌদ্র। আমি ভীষণভাবেই মানসিক অর্থে স্মৃতিমগ্ন আর একইসাথে বিষন্ন হয়ে পরছি। বার বার মনে পরছে ড্যাফোডিল ইউনিভার্সিটির ড: তাহের ভাই, আশিক, মাসুম ভাই, আশিক, বন্ধু মামুন, টি বয় হান্নান। কত উদ্দীপনা আর উত্সাহ ছিল কাজের পরিবেশে- নতুন ইউনিভার্সিটি, নতুন ক্যারিয়ার, নতুন আমার মধ্যে আমি। সদ্য গ্রাযুএট। তাই সারাদিন কম্পিউটার সাইন্স ডিপার্টমেন্ট কে একজন প্রানবন্ত ছাত্র যেভাবে দেখতে চায়- সেইভাবে প্রিপেয়ার করা। নিজে উদ্যোগে সিসকোর একাডেমি, অবসরে রিয়েল লাইফ স্টুডেন্ট প্রজেক্টের জন্যে বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ে নিজের সাংবাদিক কার্ডের সুবাদে; নতুন ড্রাইভার- আমার টয়োটা করোনা গাড়িটা নিয়ে ঢু মারা, প্রথম পার্বত্য বিতর্ক উত্সবে বিচারক হিসেবে যোগ দিতে একদল ছাত্র নিয়ে রাঙ্গামাটি যাওয়া, এক কালো-আকাশ বৈশাখী বৃষ্টির দিন শুধু ভিজবো বলে ক্লাস না নেওয়া এবং এক মস্ত লিস্ট ...।

ড্যাফোডিল ইউনিভার্সিট থেকে নয় বছর আগে বিদায় দিনে পাওয়া Gucci ঘড়িটা হাতে নিয়ে এইসব এখন স্মৃতিই যেন।

ইউনিভার্সিটিতে পড় র সময়ও কত কোলাহল। ফিসিক্স ক্লাস করবার সময় খানিকটা দূড়েই দাড়ানো গরুর ডাক, হটাত্ মিছিলের শব্দ। ইটের টুকরার নিচে কাগজে নাম লিখে বাসে ঢাকা ফিরবার সিট রাখা, চ্যানেল ই- কম্পিউটার বার্তা, কত কোলাহল। আর সেইসব গল্প লিখব পরবর্তিতে। এখনো ইউনিভার্সিটিতেই কাজ করি। কিন্তু অফিসের শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত আবহে বসে নিজেকে মাঝে মাঝেই কেবল একটা যন্ত্র মনে হয়। এই রোদ্রে হুশ করে কলিগরা মিলে নিচের চায়ের দোকানে চা খাওয়া নাই, নাই হান্নান কে দিয়ে ধানমন্ডি থেকে আনিয়ে স্পেশাল বোরহানি দিয়ে দুপুরের লাঞ্চ আর মহাখালী থেকে গুল্লু মার্কা সিঙ্গারা আনিয়ে বিকেলের টী ব্রেক। এইখানে সবাই বেশি ফর্মাল। দেখা হলেই একটা টেনে আনা হাসি, বারে বারেই বলা 'another day'.

বের হয়েছিলাম বাইরের ঝলমল রৌদ্র উপভোগ করতে। স্টেট লাইব্রেরি এর সামনে লোকজন আছে অনেকই। কিন্তু তারা শুধুই তাদের স্মার্ট ফোন নিয়ে, নিজেদের সাথেই। ক্যাফের আল্ফ্রেস্কর নিচে কয়েকজনকে বেশ ফুরফুরা আড্ডার মেজাজে পেলাম। আমার মনটা ভরে উঠলো। আপনার শেষ কবে এইরকম মনে ভরে উঠেছে?

We should use transliterate Bengali writing tools

Posted by Mohammad Hassan on May 4, 2013 at 4:20 AM Comments comments (1)

Like many of you, I am Bangladeshi. People from Bangladesh now live around the world. Different locales in the world have their own culture and languages to follow. Does this affect in speaking Bengali at home on Bangladeshis by born and those who have spent years of early life in Bangladesh. I believe and hope 'NO'.

We, now days being expats, can read, write and speak in Bengali fluently. We have our root at Bangladesh. We may try to cut it off and it's just merely impossible. One example ? When we write now in social media in a known Bengali forum, we don't hesitate or think twice to write Bengali using English characters.

That's my point discuss this time. Is it a good practice or habit?

I have often come across people who have hard feeling for others who write in Banglish. These Bengali lovers brief again and again that the latest android or apple smartphones need nothing to read in Bengali. Moreover, Banglish writers have been mentioned several times of writing tools i.e Avro, Google Bengali input toolbar etc. with web links.

Question: What do you think, these Bengali writing tool advocates will expect from Banglish writers?

Answer: Appeal positively taken and Banglish writers start using given tools in social media and elsewhere in 100% Bengali.

Real Situation: Many of us don't think seriously how social media communication taking a very significant time of daily hours. We usually don't think that we do not send hand-written letters to our friends and family since email has had its win. On the other hand, people by nature like to be in comfort zone. Hence, We often write in Banglish in social writing forums. This leads us unintentionally to forgetting even commonly used Bengali words in correct spelling. “out of sight, out of mind'. Do you, therefore, really realize the future of our very own Bengali language prevailing the current comfortable practice of Banglish writing?

So what's now...

I don't enforce any Bangladeshi to write in Bengali just after reading these few paras. Rather I, myself, write time to time in Banglish in Facebook Bangladeshi forums promoting easily accessible and downloadable transliterate Bengali writing softwares and tools.

NOW ,huge confusion for readers : Why, myself, in Banglish?

A very simple excuse: Some of us already are very strict about 'No more Banglish'. I salute them. My respect goes to them. However, in this very difficult transition time, for our own Bengali language, we need someone helping those who wouldn't leave their comfort zone. We need the volunteer for those who think they are having only their messages exchanged in Facebook and nothing else. (Facebook is not a these , assignment, project submission place written in Bengali...Why to bother so much....) We need someone who will remind and ask these people to reconsider .... going in-depth for the root cause - for FUTURE of Bengali Language amongst expats Bangladeshis future generations as well as in generic.

But, how?

My two cents...

I would strongly support those who are promoting Bengali writing tools. Parallely, I would write myself in Banglish in favour of those strong promoters using soft words and with full motivating spirit so that others can at least read and feel sincerely why wring Bengali properly using easily practicable tools is of so much significance.

Readers, I could write here in Banglish. Then why not? Because, isn't it very difficult to follow?

Why English? I wanted my readers to feel and consider my thoughts easily and review what they should do for their own Bengali language.

Why not in Bengali? If I were writing in Bengali (what I would do as my regular writing language for my own country-mates) I could have lost many of my potential readers who I really wanted to reach for this write-up to have its target met.

Please promote proper Bengali writing tools. It's easy to use and FREE!

 

 

 

My thoughts of observations, Your commnets

Posted by Mohammad Hassan on May 3, 2013 at 5:45 AM Comments comments (0)

বিভিন্ন সময়ে নিজের পর্যবেক্ষণগুলো ৮.৮.৮৮ থেকেই লিখছি। মাঝে মাঝেই গ্যাপ হয়। কিন্তু সামান্য এইসব নানান কিছু দেখা, বা অনুধাবন শুধুই নিজের ব্যাঙ্ক ভর্তি করে রেখে হুদাই একলা বিকশিত হবার কি আছে, যুগটা প্রকাশের। দেখেই কি হবে ভাই; তাতে অন্য কার কি লাভ? যা দেখলাম, যা করলাম- এমনকি নিজেও; তাতে প্রশ্ন আসলে তা কাউকে অপদস্থ্ করবার উদ্দেশ্যে তো নয়, তাই সার্বজনীনভাবে বা ইন কোমন অর্থেই লিখব। নিজের শেয়ার করা কিছুর সাথে মিল পেলে জাস্ট পড়ুন- অন্য সবাই কি ভাবছে, লিখুন আপনি কি ভাবলেন।আমি তো দেখলাম কমেন্ট আসতে বেশি দেরী হয় না। হাহাহাহ।

ইদানিং আবার লিখতে মন চায়। আমি কোনো লেখক (যে অর্থে একজন কাউকে লেখক বলা যায়;) মাত্র নই, কিন্তু লিখছি। ভালই লাগে। যারা পড়ছে হয়তো ভাবছে- সাড়ে সাত কিলো হেটে রণ ইদানিং বহুত পেচাল শুরু করলো না কি? আমিও একই রকম ভাবছি। আসলে যাদের সাথে রোজ সময়ের গ্যাপে দেখা হয়; তারা একই রকম আমাকেই তো জানেন। মুড থাকলে কিছু টপিক উস্কে দিয়ে বসে বসে আলোচনা শুনতে ভালো লাগে, কখনো কখনো বলতেও। তাহলে যারা এই আন্তর্জালে আমাকে পাচ্ছেন, কেন সেই একই আমাকে 'টেক্সট শো'র বরাতে পৌছে দিব না? কারো যদি বিন্দু মাত্র কিছু ভাবনা বাড়ে বা কোনো সিদ্ধান্তে পৌছুতে সুবিধা হয় ..... ভালো ভাবনায় কার কি ক্ষতি?

সামনের দিনে নিজের অনেক ভাবনায় অনেককে দুরে নিয়ে যাবে। আবার হয়ত অনেকের সাথেই আরও বেশি যোগাযোগও তৈরীও করে দিতে পারে। এইখানে যা ভালো লাগবে না, আপনাদেরই অনেকে হয়তো কিছু গালি, কিছু যুক্তি, কিছু তথ্য দিয়ে শুধু আমাকেই না; অজান্তেই অনেককে ঋদ্ধশালী করবেন। Together we are ...

দয়া করে এই ভাববেন না যেন- যা আমি লিখলাম তাই বেদবাক্য। সময়ের স্রোতে আমি, আপনারা- আমরা সবাই অনেক পরিবর্তনের মধ্যে দিয়েই যাই। ১০ বছর আগে যা ভাবতাম- তার সব কিছুই এখনো অবিকল সেই রকমই ভাবি, এই দাবি কে করে? লিখতে ভালো লাগছে তাই লিখছি। টেক্সট শো তে আপনাদের কম্মেন্ট পরে আমার নিজস্ব ভাবনার দিক আর গতি যদি পরিবর্তনের হয়, তবে তাই হবে। যা গ্রহণ করবার মতই, আর বুঝতে সময় লাগে না, তাতে সময় ক্ষেপণ করবো কেন? শুধু নিজের ধারনা বলেই যারা সঠিক তথ্য, যুক্তি এবং আবেগের কাছেও একঘুয়ে ভাবে নিজেকেই উপরে তুলে ধরেন, আমি সেই দলের কর্মী নই। একটি সঠিক কথা এক বার বলাই যথেষ্ট। যিনি বুঝবার, সত্যি বুঝতে চান, আশা করি তাদের সংখ্যাই এখনো অনেক বেশি। বারবার তর্ক করলেই না বুঝতে চাইলে, বুঝানো যাই কি?

আপনারা সবাই আমার টেক্সট শো তে সবান্ধব-সপরিবারে আমন্ত্রিত। শেষ যুক্তি তথ্যের পর হয়তো tv টিউন করবার মতোই অন্য কোনো টেক্সট শো তে সামিল হবেন। সোশ্যাল কমিউনিকেশন তো এই রকমই। যা ভাবলাম তা আরেকজনের সাথে শেয়ার করে যদি ভাবনাগুলোকে সঠিক বা ভুল জেনে ভালোর পথে এগিয়ে যাওয়া যায়, একসাথে সকলে।

 

 

Do what's to do & leave or avoid the rest

Posted by Mohammad Hassan on May 2, 2013 at 6:05 AM Comments comments (0)

বহু দিন ধরে এইদেশে নাই। only ৭ ইয়ার্স এর মত। এরই মাযে অনেককে দেখলাম বলতে এবং বুযাতে বাংলাদেশের সবটাই অলমোস্ট খারাপ। খারাপের লিস্টে এতই উদ্বিগ্ন ওনারা অনেকটা মেহমান হয়েই দেশে যান।সাথে নিজের উরসজাত দুগ্ধপোস্য থাকলে তো আর কথায় নেই।এক সেকেন্ডের জন্যও মনে থাকে না- যে পানি খেয়ে ওনারা বড় হয়েছেন, যেপানি এখনো দেশে নিজের পাশের বাড়ির চাচা নন শুধু; নিজের বাবা-মা রোজ প্রক্রিয়াজাত করে খেয়ে এখনো দিব্বি হাল বছর সুস্থ-সমেত মেলবোর্ন-টরেন্ট-লন্ডন-ক্যালিফর্নিয়া-নানা সন্তানের বাটি ঘুরে বেড়াচ্ছেন; সেই পানি সবার জন্যই পানযোগ্য। কোনই প্রয়োজন নাই মেলবোর্ন থেকে ২০ লিটার পানি কিনে নিয়ে দেশে যাবার।

এরা কি একবার ভাবেন না,শক্ত শেকড়টা আমাদের আজীবন ঐখানেই-যতই সিটিজেন আর বিদেশবাসী হই না কেন?

যুক্তি আমাদের সন্তানতো ওই পানি খেয়ে বড় হয় নাই? ওদের সইবে কেন? তবে শুনুন আমার মনগড়া উত্তর। এরা এদের আবাল বেলা থেকেই বেপর্দা পোশাকের সমাজ আর ইংলিশ বয়ানে অভ্যস্ত হবে। ধর্মের কথা না হয় নাই টানলাম, শুধু এইটুকু মেনে নিতে আপনি কতোটা প্রস্তুত? এরা দেখবে bmw বা লাম্বারগিনি। এটাই ওদের। আপনার সার্মথ্য কতটা ? এখন পানি কিনে খাইয়ে শেষতক কোন জায়গায় পৌছোবেন?

বাবা মায়ের কাজ এই না যে বাংলা স্কুল এর দুই ঘন্টা সময়েও বাচ্চাকে ডাকবে " কাম, কাম আমার জান বেটা, Dogy বার্ক করবে।"

শেকড় সংকটে ভোগা আমাদের বন্ধুরাই দেশের সব কিছু খারাপ জেনেও কয়েক বছর পর দেশে যান শুধুই যেন বাজার করতে। ২০ কিলো লোডে সামাল দেওয়া যায় না। আরও চাই। এইগুলো কিনে আনেন আবার এইগুলোরই দোষ ধরেন। তামাশা পর্বে যোগ হয়- ভাইরে বলবেন না সস্তার তিন অবস্থা! আসলে মনটাকে দামী করতে পারলে সস্তা জিনিস বের হয় কম। ঘরে খাবার নাই কিন্তু ৫২ ইঞ্চি TV ছাড়া লোকে কি বলবে- এইসব চিন্তা ঝাকি দিয়ে ফেলুন। শুধুই আজ কি করে ওই পার্টি তে যাব, তা না ভেবে সব সময়েই কি করে নিজেকে Consistently Prepared for situation/s করা যাই সেইটাই না হয় ভাবুন। অনুরোধ করলাম, কোনো উপদেশ বা আদেশ নয় মোটেই।

পাদটিকা: পানি কিনে দেশে যাওয়া একটা উদাহরণ মাত্র। বস্তুর প্রতি বিদ্বেষ কাম্য নয়। বরং যা না করলেই চলে তা avoid করুন এবং যা এখুনি করা দরকার তা শুরু করুন।

 

 

I got myself back after walking 7.5 KM

Posted by Mohammad Hassan on May 1, 2013 at 7:30 AM Comments comments (0)

সকালে বাসে করে অফিস যাবো, জানতাম। রাস্তার ওপার থেকেই দেখলাম বাস চলে গেল। মিস দিয়েই শুরু। সারাদিন ৬ ঘন্টা ক্লাস-সেমিনার যা রোজকার রুটি-রুজি।

অনেক দিন পর মেলবোর্ন সেন্ত্রাল থেকে হপার্স ক্রসিং ট্রেনে ফিরলাম। ছয়টা একের বাস। এইটাও মিস। ২৩ এ আবার। বউ ফোন দিল। কথা বলতে বলতেই; সামনে থেকে ২৩ এর বাসটা চোখের সামেনই চলে গেল। ফোনে বলেছি 'বাসেই আসছি, তোমাকে নিতে আসতে হবে না'।

পরবর্তী বাস ৭ টা এক। এরই মধ্যে ২০ মিনিট প্রতিক্ষায় নোট করেছি কত কি কাজ বাকি। আজকাল বড্ড অন্যমনস্ক থাকি। কাজের লিস্টের থেকেও মনটা দ্রুত চলে-তাই খেয়াল রাখতে পারি না।

আবারো ফোন দিয়ে বউকে আসতে বলতে ইচ্ছে করলো না। আবার বাসের জন্যে হুদাই বসতে থাকতে অসয্য লাগবে। বহুদিন আগে লিখেছিলাম 'যে নিয়ম ভাঙ্গলে আবারো নিজেকে চেনা সহজ, আমাকে সেই দলে ফেলো'।

হপার্স ক্রসিং থেকে বাসা বেশি দুরে নয়।মোটে সাড়ে সাত কিলো। হেটেই রওনা দিব- ভেবেই শুরু করে দিলাম ছয়টা পয়্ত্রিশে। একটা লাপ্টপের ব্যাগ, ভারী জাকেট আর হাতে এম এক্স। চেনা রাস্তা তাই ভাবতে ভালো লাগলো 'এইতো চলে যাব' ।

কিন্তু যখন অয়েরাবি প্লাজা দারুন ভাবেই না দেখা হয়েই ছিল তখন একটু গাবড়ে গেলাম বটে। হাতের এম এক্স শক্ত করে ধরতে লাগলাম। সময়ে সময়ে রাস্তা পার হতে যে দৌড়টুকু দিলাম তাই যেন আমকে ৩০ সেকেন্ডে আগিয়ে নিয়ে ফের উজ্জীবিত করতে থাকলো।

যখন শুরু করেছিলাম শীত লাগছিল। একটু পরেই ঘামতে লাগলাম।হুডি ফেলে দিলাম। জাকেটকে বেশ ভারী মনে হতে লাগলো। কিন্তু কিছু দূর যেয়েই আবার ঠান্ডা লাগলো। সুতরাং কোথাও যাবার সময় যতই ভাবুন না কেন কাজ করলে ঘেমে যাবেন - তাই এইসব উটকো যামেলা না থাকায় ভালো - সেই ভাবনাটা ঠিক নাও হতে পারে। বিশ মিনিটের মাথায় প্লাজার লাইট দেখে যে আনন্দ পেলাম তা ঠিক বোজানো কঠিন এখন।

পেডেস্ত্রিয়ান লাইটে এ গিয়ে ৩ মিনিট হুদায় আটকে থেকে মনে হচ্ছিল আমি হয়তো আর সাতটা একের বাসের আগে বাসায় পৌছতে পারব না। কিন্তু একটু পর মনে হলো ওইটুকু থেমে আমার নতুন শক্তি,নতুন উদ্দম অর্জিত হয়েছিল।

রাস্তায় খেয়াল করে দেখেছেন নিশ্চয়ই- অনেকেই আপন মনে কথা বলে। আজ আবার বুযলাম মানুষ বেশিক্ষণ একলা থাকতে পারে না বলেই হয়তো একটা সময়ে নিজে কথা বলা শুরু করে। আমি বেসুরো কন্ঠে গানের সুর ধরলাম। তাতে বেশ লাভ হলো। কোনো এক বাসার ভেতরের কুকুর যে আওয়াজ দিল তাতে একটু দৌড়ে নিলাম।আরও যেনো একটু বাসার কাছে পৌছালাম!

এই কথা বা গান এবং দ্রুত হাটায় আপনার যা হবে তার নাম- তৃষ্ণা। আমি খুব একটা পানিপ্রেমিকনই । এখন মনে হলো -ইসস শুভ থাকলে হয়তো বলতো 'এই পানি খাবে".

আনিক দিন হাটি না। হাটু ব্যথা করতে লাগলো।মনে হলো শুক্রবারে অনেক মুরুব্বিকে দেখেছি হেটেই দূরে কোথাও নামাজ পড়তে চলে যান (বাসায় কেও না থাকলে)। আর আমি তো নওজোয়ান। আরো মনে হলো আরে আমিতো বাঙালি, ব্যাপার না।

যখন দীর্ঘ পথ হাটার থাকে- পরিচিত পথে চেনা কিছু পরলেই মনে হয় এইতো চলে এলাম। নাটকের মত সাদা কাপড়ের কেও আয়নায় না এলেও এইরকম যেকোনো পজিটিভ ভাবনা সাথে থাকলে ঠেকায় কে? ভাবনা আমার বহু পুরানো বন্ধু।কোনো দিন ছাড়ে নাই, যাবেও না।

একটু পর পায়ের পাতা ব্যাথা করতে থাকলো। আর তার কিছুক্ষণ পরেই আমি যেন বেশ ফুরফুরে মেজাজে ফিরে এলাম। একট হেভি জোস অনুভব করলাম। আসলে কেষ্ট যদি খুব আরাধ্য হয় তবে ক্ষণিক কষ্ট শুধু ভয় দেখাবার, কিন্তু পরাজিত করবার মত নয়।

হা ভয় পেয়েছি যখন বাসার কাছে খালের উপর ব্রিজটা পার হচ্ছিলাম। রোজ রাতে ভূত এফ এম শোনা আমার খুব বাতিক এখন। মনে হলো কেউ পা ধরে টান দিবে।

শুরু করে ছিলাম পায়ের স্টেপ গুনা দিয়ে। দুইশোর পরে আপন মনেই বলতে থাকলাম 'রাব্বির হাম হুমা কামারাব্বা ইয়ানি ছাগিরা'।

একটু পর মনে যা গালিই এশেছে তাও দিলাম। গানও গাইলাম। একলা থাকলে আর সবাই কি করে তাও জানতে মন চাইছিল বটে।

এক ঘন্টা ১০ মিনিট পর বাসায় এসে একু সুন্দর হাসি দিয়ে বউকে ক বললাম আমি হেটে এসেছি - 'আবার আমাকে ফেরত পেলাম'।

এইটুকু কষ্ট করে পড়ে থাকলে আর যদি পুরানো কিছু স্পিরিট ফেরত পেয়ে থাকেন -মন্দ নয়। কিন্তু যারা বললেন এইটা কিছু একটা হইলো? তাদের জন্যে - হা আমার জন্যে হইলো। আপনি আপনার জন্যে ভালো কিছু একটা হওয়ায় নেন। ভালো থাকুন।

Being entertained & may we ask you to be vocal?

Posted by Mohammad Hassan on March 3, 2013 at 9:10 PM Comments comments (2)

দেখে-শুনে-পড়ে বিনোদিত হবেন; না কি নিজে কিছু করবেন?

মেলবৌর্নের আল তাকওয়া মসজিদে জুম্মার নামজের পর ইমাম সাহেব দোয়ার সময় বাংলাদেশের মুসলিমদের মেরে ফেলা হচ্ছে- জুলুম চলছে বলে বিশ্বের সব মুসলিম ভাইদেরকে বিশেষ ভাবে দোয়া করতে বলেছেন। আপনি কি মনে করেন, আসলে কি তাই হচ্ছে? কারা ইমাম সাহেবকে এই তথ্য দিতে পারেন বলে আপনার মনে হয় ?

দেখুন, আওয়ামী সরকার এইবার ক্ষমতায় আসার একটি অন্যতম বড় কারণ তারা যুদ্ধপরাধীদের বিচার করবে বলেছিল। তারা নির্বাচনের ঠিক আগে যখন তত্ত্বাবধায়ক সরকার নিয়ে বিএনপি দাবি তুলে চলেছে তখন বিচার শুরু করেছে। সব সুস্থ মানুষ রাজাকারের বিচার চান। সুতরাং এখন গণ-মানুষের নজর এই বিষয়ে। বিনপির পর্যবেক্ষণে আওয়ামী লীগের লোক বাদ দিয়ে অন্য সব রাজাকারের বিচার হচ্ছে। কিন্তু তারা নিজ মুখে উচ্চকন্ঠে বলছে না যে জামাতের সাথে তাদের আতাত কেন? বা তাদের দলের রাজাকারের বিচার নিয়ে তারা কি করতে চায়? তাই বিনপির দাবি অনেকটাই যেন আরিচা ঘাটে আসা ফেরির আলোয় কুপির কম আলোর মতই হয়ে আছে। পাবলিক পরিষ্কার স্ট্যান্ড চায়, টক শোতে মিনমিনে টাইপ দাবি না।

 

রাজাকারের বিচার চেয়ে মুসলিম সংখ্যাগরিষ্ঠ বাংলাদেশীদের সবাই কি আজ জামাতি হয়ে গেল? মেলবৌর্নে সেদিন জুমার দিন মসজিদে কি কোনো একজন তার নিজের পর্যবেক্ষণের কথা ইমাম সাহবে কি জানিয়েছেন? আমার তা মনেহয় না। এটা সংঘবদ্ধ কাজ। নিজে পাচ ওয়াক্ত নামাজ পরেও এই সব কথা লিখবার কারণে অনেক পরিচিত বন্ধুই ক্ষেপবেন। যেমন শাহবাগ সংহতি নিয়ে নেলবৌর্নের আয়োজনকে নিয়ে লেখায় অনেককে সন্তুষ্ট করা যায় নাই। কিন্তু যা নিজে দেখেছি, পরবর্তীতে যার নাম রেফার করেছি তার সাথে কথা বলেও এবং আরো কয় একজনের সাথে কথা বলেও নিজের অব্জার্বেসনকে ভুল ভাবতে পারি নাই। সত্য এইরকমই। শাহবাগের ব্লোগাররা প্রথম মুক্তিযুদ্ধের স্লোগান জয় বাংলা দিয়ে শুরু করে এখন followed by জয় বঙ্গবন্ধু। এই পর্যন্ত আপত্তি নাই। কিন্তু রাজাকারের বিচার করেই যদি দেখতে হয়, জয় আওয়ামী লীগ ? তাহলে কি হতে পারে তা নিয়ে ভবিষ্যত বাংলাদেশের আশঙ্কার কথা পূর্বে মাংগো-পিপলের বয়ানে লিখেছিলাম। কেউ কেউ ক্ষেপেছিল। এইবার আবার বলছি - জামাতিরা যদি মসজিদে বলে - বাংলাদেশে মুসলিমদের উপর নির্যাতন হচ্ছে তবে ওদের প্রতিরোধ করুন, যেমন ঐদিন মসজিদে প্রতিবাদ হয়েছিল।

চুপ করে বসে থেকে বিনোদন নিয়েন না, সময়টা বিনোদিত হবার নয়, ভিন্ন মতের কাউকে গালি দিয়ে আর অনেক অনেক তর্ক করে- একটা কিছু করলাম ভাববার নয়। বরং শুদ্ধির খোজে নিজেকে জাগানো এবং সহনশীলভাবে শ্রদ্ধায়-সম্মানে সকলের সাথে মিলে-মিশে ভালো কাজের তাগিদের; আর তার বাস্তবায়নের । ভালো থাকুন, ভালো ভাবুন।

In Recent Time: Text SHOW

Posted by Mohammad Hassan on February 27, 2013 at 4:55 PM Comments comments (0)

সব প্রেক্ষাগৃহে চলছে- টেক্সট শো:

টক শোয়ের সাথে তো সবার পরিচয় আছে। এখন যা চলছে তাকে নাম দেওয়া যেতে পারে টেক্সট শো। আপনি লিখতে পারেন, অন্য আরেক জনও পারেন, আমিও পারি । শুধু পরিচিত বলেই হয়তো অনেকেই ফ্রেন্ড লিস্ট এ আছেন- সবারই। অনেকেই সত্যি বন্ধু নন কিন্তু। ভার্চুয়াল জগতে ফামিলিয়ার আর ফ্রেন্ড এক। এই ফামিলিয়ার জাতের বন্ধুরা অনেকেই একে অপরকে ঠিক চিনেন না, জানার কথা তো অবান্তর। কেমন করে যেন ফ্রেন্ডলিস্টে এসে যান। সুতরাং অনেকের কাছ থেকেই পরস্পরের প্রতি সম্মান, স্নেহ, শ্রদ্ধা অর্জন অনেকের জন্যই বোনাস।

যা লেখা হচ্ছে আরেক জন দেখছেন, শেয়ার মারছেন। ফেইসবুকে অনেকের অনেক প্রাইভেট কিছুই তো পাবলিকলি available. কারো পছন্দ হহলে লাইক/ কমেন্ট , না হলে কমেন্ট। যুক্তি -তর্ক। কোনো কবি এখন আর নিরব নন।

যারা মতের অমিল পান তাদের কমেন্ট টেক্সট শোতে পড়লে মনে হয় লিখতে লিখতেই উত্তেজনায় দাড়িয়ে গেছেন, সামনে পেলে মূল লেখক এবং তার সমর্থকদের যেন কি করে ফেলতেন! রাজাকারী, পতাকা পুরানো, শহীদ মিনার ভাঙ্গবার পরেও বাস্তবে আমরা কিন্তু এখনো অনেক বেশি সহনশীল। সাবাস বাঙালি। কিন্তু লেখায় একজন আরেক জনকে এভিডেন্স এ না পারলে ব্যাক্তিগত পর্যায়ে গিয়ে পারলে লিখেই ছিড়ে ফেলে আর কি ! টক শো এর ধারাবাহিকতায় টেক্সট শোগুলোতে সহনশীল-নমনীয় আমাদের পরিচয় যেন হারিয়ে যেতে বসেছে।

ওহ, পছন্দের কথা কি বলছিলাম না? টেক্সট শোয়ের বিষয় যদি চলতি সময়ের হট টপিক হয়ে থাকে আর তাতে যদি গলাবাজদের স্রোতে ভাষানো নৌকায় আরোহী আপনি না হন, কিন্তু নিজের Guts নেই যে সাক্ষ্য সমেত বিপরীত দিকে পাল তুলবেন, কিংবা নেগেটিভ বললে যদি ভবিষ্যতে ধানের শীষ (সুবিধা বুঝাতে প্রতিকী অর্থে)পেতে সমস্যার ঝুকি থাকে, কিন্তু হাত চুলকায়- তবে মুক্তমনে লিখে দেওয়া যায় "ব্যাপক বিনোদিত হইলাম". এতে কাওকে সুস্পষ্ট করে কিছু বলা হলো না, তবে প্রগিতিশীল হিসেবে কিছু না বললেও যে খারাপ দেখায় সেই যাতনা থেকে মুক্তি পাওয়া যায়!

এইবার মূল টেক্সট শোতে আসি। মাংগো-পিপল (যারা ব্লগ লিখে সাধারণ জনতা) তাদের একজন তার প্রাইভেট কাম পাবলিক ফেইসবুক স্টেটাস পোস্ট দিয়েছেন "ফটোশপ, কাট-পিস, আস্তিক গুলা এক হয়েছে, চরিত্রহীন ছেলে-মেয়েদের আস্তানা, বাম চিকার আস্তানা, অখ্যাত এক ব্লগার লাশ হয়ে গেলো ...... আন্দোলনকে নাস্তিক বানাতে, তার অ-খাদ্য লেখা গুলো সবার মনিটরে জীবন পেল, কত যে ধুয়া উঠানোর চেষ্টা... সবকিছু সামাল দেয়া গেছে। কিন্তু BAL এর ঘেঁষাঘেঁষিতে যে Deodorant এর গন্ধ আসছে ......তাতে আমার যে Suffocation অবস্থা !! আন্দোলনটা না-জানি দমবন্ধ হয়ে মারা যায় ???? !!!!! Frustrated !!!!- ১৯ ফেব্রুয়ারী " আরেকজন শেয়ার করেছেন আরেকজনকে " BNP jokhon Nijer Paye Nijei Kural mare.... Tokhon AL fayda na Lutar moto Mohot kono Shongothon na...... Shobai Shartho bujhe.... Kintu Andoloner Bipokkhe jaye BNP'r kon sharthho uddhar hoitechhe sheta tarai valo jane..... AL jodi Faka Mathegoal dey, ei jonnow BNP ee Dayi thakbe..... Bangladesh a 3rd Power Bole kichhu ashar chance ekebarei kom.. so BNP jokhon Math chhere dey, AL agami Election a jite gele j tara desher 24 ta bajabe ta niye kono doubt nai...... So, Shahbag Here gele Porinoti Onek Voyaboho hobe..... Jite gele Taw ekta khino shomvabona thakbe j AL BNP ke voy na paileo atleast Public re voy pabe. Tai J jekhane achhen, shei obosthan theke Shahbag er Main Theme- "Rajakar er Fashi, Jamat shibir Nishiddho kora" k support korun, shohojogita korun. Na hole apnio BNP er motoi AL k math chhere dicchen Dirghosomoyer jonnow... jaar porinam hobe onek voyaboho...২৭ ফেব্রুয়ারী ". এরা দুই জনই মেলবোর্ন এ অতি সক্রিয় ভাবে শাহবাগ সংহতি জানিয়েছেন। এদের অনেকের মতই কিংবা অন্যরকম ভাবেন আম জনতা (সাধারণ মানুষ যারা লেখেন না, কিন্তু পড়েন, তর্ক করেন কম কিন্তু ভোটের সময়ে পলিটিশিয়ানদের কাছে দরকারী).

আপনি তো এই টেক্সট শোয়ের পড়ুয়া- হইতো মাংগো-পিপল বা আম-জনতা।আপনিও আপনার পর্যবেক্ষক চোখে যা আসছে তা নিয়ে নিজের ধারণা চাইলে কমেন্ট করতে পারেন (একেবারে লাইভ টক্ শোয়ের মতই, তাই না?). কিন্তু প্রশ্নের উত্তর দিতে বসি নাই এইখানে। সব প্রশ্নের উত্তর এক শোতে দেওয়াও যাবে না। এই আয়োজন আপনার বা আপনাদের পছন্দ না হলে গালি দিতে পারেন, হুমকি দিতে পারেন। মর্জি। হরহামেশা তাই তো হচ্ছে! কিন্তু আমার দাদা-বাপ একটা টেকনিক শিখিয়েছিলেন। সেইটা আপনাদের এক্কেবারে ফ্রি দিতে পারি। জোরাজুরি নাই, বড় হয়েছেন, নিবেন কি না সেইটানিজের উপর।যাক, টেকনিকটা হলো কারো কথা-বার্তা, কাজ-কর্ম পছন্দ না হলে ভালোভাবে বুঝান, না বুঝলে Ignore করেন তাতে যে যা বলে চলেছে তা নিজেই একাই পড়বে, সঙ্গে সাথী পাবে না। আর আমার টিপ হলো, যা ভালো লাগে নাই, বুঝানোর পরেও বুঝতে পারে না, সেই সব পোস্ট পড়বেন না ।যেটা খারাপ জানেন সেটা পড়ে সময় নষ্ট কেন রে ভাই? উধাহরণ- যদি কেউ রাজাকারের বিচার না চায় বা নাস্তিকবাদ নিয়ে মেতে থাকে -আপনি দুই এক বার বুঝানোর পরেও বুঝতে চায় না, কৌতোহল বশতও তাদেরকে আর পড়বেন না ।আপনি যত পড়ছেন ঐসব বদমাশ তাতে দিগুন উত্সাহ পাচ্ছে।সুতরাং, আপনিই জানেন আপনি কি চান?

বর্তমান সময়ে কাজ ছিল একটাই- সব রাজাকার এর বিচার চাওয়া। দুই একজন নাস্তিক মানুষ আন্দোলনে শরিক থাকায় কিছুদিন আলোচনা; বিজ্ঞাপন বিরতির মত অন্যদিকে মোড় নিয়েছিলো। অনুষ্ঠানের মদ্দেও নতুন বিজ্ঞাপন দেখলে যেমন ভালো-খারাপ লাগে তেমনি ধর্মপ্রাণ বাংলাদেশী আম জনতার সেটা ভালো লাগে নাই। বর্জন করুন, ওদের নাস্তিক ভাবনা। নাস্তিক ভাবনার পরেও ওরা কিন্তু মানুষ।কোনো ধর্মই বলে নাই এইসব মানুষ মেরে ফেলো। গ্রহণ করুন সব রাজাকারের বিচার নিয়ে সহমতটুকু। একই ভাবে যারা শুধু বিশেষ দলের রাজাকারদের বিচার চায় আম-জনতা হিসেবে আপনার মনকে প্রশ্ন করুন ওদের কি করবেন? আজকের টেক্সট শো এই আশাবাদ ব্যক্ত করেই শেষ করছি। শেষ প্রশ্নের উত্তর খুজতে চাইলে সঙ্গেই থাকুন Same Text Box , Same Place. (চলবে )

পাদটিকা: পাঠকের অনেক প্রশ্নের উত্তর দেওয়া আছে। বুঝতে চাইলে এমনি বুঝা যাবে, না চাইলে বুঝালেও যাবে না। সুতরাং আমার এই পোস্ট নিয়ে আমার অন্তত No Comments! বাংলাদেশে পলিটিশিয়ানদের থেকে (তথাকথিত বা আপাতদৃষ্টিতে) নগণ্য আর মামুলি সিটিজেনরা যে ভালো পলিটিক্স বুঝে সেটা সবার কাজ কারবার পর্যবেক্ষণ করে বুঝতে থাকুন এবং ভবিষ্যতে আপনার কাজের মাধ্যমে তা বুঝিয়ে দিন। আপনারাই জয়ী হবার সব শক্তি রাখেন। সবাই সুস্থ থাকুন, ভালো ভাবুন, ভালো থাকুন।

Rajakar issue & my 2 cents

Posted by Mohammad Hassan on February 24, 2013 at 6:45 AM Comments comments (0)

রাজাকার ইস্যু আর আমার দুই অক্ষর: দেখুন আমি তো ভাবি সবাই রাজাকারের সত্যি সর্বোচ্চ শাস্তি চায়। কিন্তু সবাই আওয়ামী লিগ বা বিনপি বা জামাত বা অন্য কোনো দল করে না। অনেকেই এদের কাছ থেকে অনেক ভালো কিছু আশা করে। নির্দোধ ভাবছেন? হা তাই। এরা নিজেরাই বলেছেন দেশকে কিছু দিতে এসেছেন। সত্যি হলো রাজনীতিবিদরা দেশকে কি দিয়েছেন তা আমরা জানি।

আপামর জনগণ শাহবাগ এ যেতে হলো, এদের ভুলের কারণেই। কিছুদিন পর যখন পরিস্কার হতে লাগলো ; আওয়ামী ব্যাকআপ- সাধারণ জনগণ তাদের প্রাণের দাবি নিয়ে ফাপরে পড়ল, একদিকে বিচার চাই- ই আর এক দিকে নির্লজ্জ ভাবে আওয়ামী রাজাকারদের বাদ দিয়ে বিচারের দাবি। এ নিয়ে প্রশ্ন তুললেই এক দল পরিচিত বন্ধুদের কাছ থেকে ছাগু হয়ে যাবার রিস্ক। অন্যদিকে বিনপির নিরুত্তাপ থাকা। বিনপি পরিস্কার বলেছে সব রাজাকরের বিচার প্রয়োজন। তাহলে জামাতের সাথে আতাত কেন? ভাইরে সবই নিজের সার্থ আর ভোগে ফল যোগানোর কায়দা মাত্র। বেকায়দায় আমি আর আপনি।

টুপি পরলেই জামাত, মুজিব কোট শুধুই আওয়ামীদের, ব্লেজার যেন জাতীয় পার্টির, সুট - পান্ট বিনপির, ঝোলা ব্যাগ -পাজামা পাঞ্জাবি বামদের -এইভাবে যারা মানুষকে ভাবেন- নাস্তিকদের বিরুদ্ধে বোকা ইসলাম্পন্থী সরল লোকগুলো মরলে, তারা জামাতের লোক বলেই তো বিবেচনা করবেন।

আমাদের দোষ কোথায় এই বিবেচনায়? জামাততো বলে নাই যে ঐসব দুস্কৃতিকারী তাদের দলের নয়। এরা ইসলামের নাম করে মানুষকে কি অশান্তির ধর্ম দেখায় আর শেখায় ???? সুতরাং আমরা চাই যারা শহীদ মিনার ভাঙ্গে, আপনার- আমার পতাকা পুরায়, পাকিস্তান জিন্দাবাদ বলে তাদের সর্বোচ্চ বিচার।

সাধারণ সবাই সব রাজাকারের বিচার চায়। মুক্তিযুদ্ধের সপক্ষের সরকার বলে দাবিদার বলুক- তারা মনে করে তাদের দলে কোনো রাজাকার নাই। আপনি কি বলবেন; সরকারি দলে কোনো রাজাকার আছে- কি নাই ? আপনার ঘরে যদি সমস্যা থাকে তবে আপনি কি আগে অন্যের দোষগুলোকে নিয়ে গলা উচু করতে পারেন? হা জামাতেরনষ্টামি নিয়ে বলা যায়। সেটাই যুক্তির আর বহু আগে থেকেই দাবির। আমি একা যদি সরকার হতাম তবে বিচার শুরু করতাম এবং সাথে নিজের সাক্ষাত শয়তানগুলোকেও সরাতাম। আপনি কি করতেন ?

যুদ্ধের বহু পরে জন্ম নিয়ে যেটুকু নিজের চোখে দেখেছি তাহলো ৮৬ তে আওয়ামী লিগ পলিটিকাল কারণে নাকি রাজাকারদের সাথে হাত মিলিয়েছিল। ঐটা নাকি পলিটিকাল ???? আজ বিনপি একই কাজ করলে সেইটা কি??? ৭১ এর ভুমিকা নিয়ে ভাষা সৈনিক কুখ্যাত রাজাকার গোলাম আজম ও বলে ঐটা ছিল পলিটিকাল ডিসিসন। হাই রে! ধিক এদের এদের সবার প্রতি। থুতু দেই।

৪০ বছর আগে দাদা মারা গেছে অন্যায় ভাবে, আর আজ আমি-আপনি সঠিক নিরাপদ ভাবে বাচতে পারি না- কোনটা আপনার মনের সত্যি প্রায়োরিটি? 'বিচার চাই সব অন্যায়ের' এইভাবে তো কেউ এক সাথে হয় না। কেন? 'সবার ভালো হউক সেইটা বাস্তব করি' সেই চেষ্টা তো এখনকার শাহবাগের রোজ সকালে খুঁজে পাই না। নিজের কম পড়বে নাকি? অন্যক়ে দোষ না দিয়ে নিজে ভালো কাজ করলে রাজাকার তৈরী হয় না, হলেও ভয়ে মুখ দেখায় না।

পাদটিকা :একটু সময় নিয়ে ভাবুন কি বলতে চেয়েছি। এর পর নিজের মত ভালো কাজে যেভাবে পারুন এগিয়ে যান। আপনার মন ই এক একটি নতুন প্রজন্ম চত্তর। সব পুরাতন আর নতুন রাজাকারের বিচার চাই।