Bangladeshi Broadsheet

One stop web portal for Bangladeshies in Australia

Next Text Post New Entry

Jeebon Theke Neya.....3rd Episode

Posted by Elora Zaman on February 18, 2013 at 6:20 AM

3rd Episode:

 

১১-টেলিভিশনের মত সময় অপচয়কারী বস্তু আর নেই! আমার বয়স একুশ হওয়ার আগে আমি টিভি দেখে আমার জীবনের অনেক সময় অপচয় করেছি। আমার মনে হতো "অমুক প্রোগ্রামটি আমাকে দেখতেই হবে". এখন আমার সেই হারানো প্রতিটি সেকেন্ডের জন্যে খুব দুঃখ হয়। সারা পৃথিবী এগিয়ে চলে যাচ্ছিলো ভবিষ্যতের দিকে আর আমি বসে বসে টিভি দেখছিলাম!

বিংশ শতাব্দীতে টিভি একটা গুরুত্বপূর্ণ জিনিস ছিলো - সাধারণ মানুষের সাথে যোগাযোগ এবং সংবাদ এর জন্যে। কিন্তু এখন টিভির আর তেমন দরকার নেই। টিভির খবরগুলো সাধারণত পক্ষপাতিত্বপূর্ণ হয় যেখানে আমাদের অনেক বিকল্প সংবাদ মাধ্যম রয়েছে। আর টিভির অনুষ্ঠানগুলো থেকে শেখার প্রায় কিছুই নেই, যদিও এগুলো মানুষের দিন থেকে ঘন্টার পড় ঘন্টা নিয়ে নেয়। অথচ আমরা প্রায়ই অনুযোগ করি আমাদের হাতে সময় নেই!টেলিভিশন মানুষকে ঘরকুনো করে ফেলে।

ঘরের ভেতরে বসে টেলিভিশনের স্ক্রীন এর মতো জড় একটা জিনিসের দিকে তাকিয়ে থেকে জীবনকে কোনোভাবে সমৃদ্ধ করতে পারবেননা।

 

১২-ইন্টারনেট হচ্ছে মানুষের তৈরী সবচেয়ে উপকারি সুবিধা! কিন্তু এটাকে পরিমিতভাবে ব্যবহার করতে হবে !ইন্টারনেট হচ্ছে একটা সক্রিয় মাধ্যম। ইন্টারনেট নিয়ে আপনি অনেক কিছু করতে পারবেন, একটা ভার্চুয়াল সামাজিক জগতে ঢুকে যেতে পারবেন। ইন্টারনেট পৃথিবীর বিভিন্ন দেশের মানুষের মধ্যে নানাভাবে সংযোগ স্থাপন করে এবং এটা ছাড়া আমার গত তেরো বছরের জীবন অনেক কঠিন হতো। ইন্টারনেটের এতো উপকারিতা সত্ত্বেও এটারো টেলিভিশনের মতোই সময় অপচয় করার সম্ভাবনা আছে। জীবনকে সমৃদ্ধ করার জন্যে ইন্টারনেট ব্যব্যহার করুন, কিন্তু সারাদিন এর মধ্যে পড়ে না থেকে বাইরে যেয়ে সেই সমৃদ্ধ জীবন উপভোগ করুন। টেলিভিশনের জড় স্ক্রীন এর জায়গায় কম্পিউটার এর অনেক কর্মকান্ডভরা স্ক্রীন ব্যবহার করলেই যে আপনার সময়ের সদব্যবহার হবে তা কিন্তু না। বাইরের পৃথিবী অনেক বেশি সুন্দর, বের হোন এবং সেটা উপভোগ করুন।

 

১3- জীবন নিয়ে তাড়াহুড়া করবেননা প্লীজ! সময় নিন। যেসব মানুষ কিংবা দেশ সবকিছু তাড়াহুড়ো করে করতে চায় তাদের কাজের কোয়ালিটি আসলে ততোটা ভালো হয়না। সবকিছু সহজভাবে নিন এবং ধীরে ধীরে কাজ করুন।

খাবারের প্রতিটি কামড় উপভোগ করুন, হাঁটার সময় চারপাশ দেখে ধীরে ধীরে হাঁটুন, কারো সাথে কথা বলার সময় তাকে তার কথা পুরোপুরি শেষ করতে দিন এবং সে পর্যন্ত মনোযোগ দিয়ে সেটা শুনুন।

দিনের কাজের ভেতর মাঝে মধ্যে কাজ বন্ধ করে বাইরে তাকান, কিংবা চোখ বন্ধ করে একটা বড় নিঃশ্বাস নিন, বেঁচে থাকার জন্যে নিজেকে সুখী ভাবুন। বেঁচে থাকতে গেলে সুখানুভুতি অত্যন্ত জরুরী!

 

১৪-আপনি সবাইকে খুশি করতে পারবেননা!

"সফল হওয়ার উপায় হয়তো আমি জানিনা, কিন্তু ব্যর্থ হওয়ার উপায় হচ্ছে সবাইকে খুশি করতে যাওয়া" - বিল কসবি।

নিজের মতামত স্পষ্টভাবে ব্যক্ত করুন। আপনার যদি আপনার মতামতের ব্যাপারে আত্মবিশ্বাস থাকে এবং সেই মতামত অন্যদের সাথে শেয়ার করেন তাহলে নিশ্চিতভাবে অনেক মানুষ আপনার উপর বিরক্ত হবে, আপনার কথাটা যতই চমৎকার হোকনা কেন। যারা আপনার সাথে একমত না এবং আপনার মত পছন্দ করছেনা এটা তাদের সমস্যা, আপনার না।

 

১৫- স্মার্ট হবার চেষ্টা করুন এবং বিবেচনা না করেই লেটেষ্ট ক্রেইজের পেছনে ছোটা আসলে আনস্মার্ট একটা ব্যাপার ! যারা সবসময় অন্যের দেখাদেখি নিজেকে পরিবর্তন করার চেষ্টা করে তারা আসলে নিজেদের ব্যক্তিত্ব নিয়ে ভয় পায়। নিজের মেরুদন্ড শক্ত করুন, এবং স্রোতের বিপরীতে যাওয়াটাকে যদি আপনার সঠিক পথ মনে হয় তাহলে শক্তভাবে তাই করুন। আজকে যেটা চমকপ্রদ কয়েক বছর পর সেটাই হয়তো সবার অপছন্দের জিনিসে পরিণত হবে।

 

১৬-ভুল করতে ভয় পাওয়াটা ঠিক নয়, ভয় পাবেননা। ভুলের মাধ্যমেই আমরা শিখি। সাফল্য আসে অনেক ভুলের পরেই ।

বেশি ভাবাভাবি বন্ধ করে কাজ করুন। বেশি ভাবতে যেয়ে জীবনের দরকারী কাজগুলো প্রায়ই করা হয়ে উঠেনা। আমি আমার জীবনে বেশি ভেবেচিন্তে একটা কাজও করতে পারেনি। বেশি চিন্তা না করে কাজে নেমে পড়ুন। নাহলে কিছুই আর করা হয়ে উঠবেনা।

 

১৭-সুযোগ পেলেই গাইতে এবং নাচতে চেষ্টা করুন। সেটা অন্যের সামনেই যে করতে হবে এমন নয়! গান এবং নাচ চমৎকার আর্ট এবং মনকে খুব হালকা করে। নাচানাচি কিংবা গান গাওয়া/শুনার পর মন ভালো না হয়ে উপায় নেই! মনকে শান্ত করবার জন্যা আরেকটি চমৎকার টনিক রয়েছে। সেটি হলো প্রার্থনা-যেটাকে আমরা নামাজ/সালাত বলি। আ্যপ্লাই করে দেখুন ভালো লাগবে! তাই বলে আপনাকে এক্সট্রিম হতে হবে তা নয় কিন্তু। যখন যেটুকু ভালো লাগবে সেটুকুই করুন, জোর করে চাপিয়ে নিয়ে নয়। ইসলাম মধ্যপন্থা অবলম্বনের কথা বলে। ধর্মের কিছু কিছু ব্যাপারে জোর করতে গেলে বিতৃষ্ণা আসতে পারে!

 

১৮- অনেকে ধর্মে বিশ্বাস করেননা। এটা একেবারেই বোকমি। নাস্তিকতাও একটা ধর্ম কারণ ধর্ম হলো একটা জীবন বিধানের নাম। চরম নাস্তিক বা অবিশ্বাসী মানুষও জন্ম এবং মৃত্যু নামক বিধানকে অস্বীকার করতে পারেনা! পুরোপুরি অবিশ্বাসী হওয়া আসলে সম্ভব নয়।

 

১৯- নতুন বন্ধু বানানো কঠিন কিছু না, এবং বর্তমান বন্ধুদের সাথে সুসম্পর্ক রাখাও জরুরী। আপনি যদি বন্ধুত্বপরায়ন, অকপট, এবং মোটামুটি মানুষকে আকর্ষণ করার ক্ষমতা রাখেন তাহলে পৃথিবীর যেকোনো জায়গার যেকোনো মানুষের সাথে আপনি বন্ধুত্ব করতে পারবেন।

 

২০- আপনার যা যা আছে তা হারিয়ে যাবার আগে সেগুলোর মূল্য বুঝবেন না। কোনো কিছুকেই খুব সহজপ্রাপ্য হিসেবে ধরে নিবেন না। একদিন রাতে সিঙাপুর এয়ারপোর্টে কোন এক বিশেষ কারণে আঠারো ঘন্টা ট্রানজিটে আটকে যেতে হয়েছিলোএবং আমাকে শীতের মধ্যে চেয়ারের উপর ঘুমাতে হয়েছিলো। সেই থেকে আমি আমার ঘুমানোর জন্যে যে একটা বিছানা এবং বাসা আছে সেটা নিয়ে কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করি। কারণ আমি জানি পৃথিবীর অনেক মানুষের এই মৌলিক জিনিসগুলোও নাই। কেবল এক রাতের বাইরে ঘুমানোর কষ্ট থেকে আমি এখন প্রতিদিন রাতে আমার বিছানায় ঘুমাতে যাবার আগে স্বস্তির নিশ্বাস ফেলি!

একবার আমার কানের ইনফেকশনের কারনে আমি প্রায় দুই সপ্তাহ কানে কিছু শুনতে পারতামনা। এরপর থেকে আমি আমার শ্রবণশক্তির জন্যে সবসময় কৃতজ্ঞ থাকি। সুস্থ কান থাকার কারণে আমি চারদিকের এতো সব চমৎকার শব্দ শুনতে পাই!

 

আগামী পর্বে সমাপ্য......

Categories: Elora's

Post a Comment

Oops!

Oops, you forgot something.

Oops!

The words you entered did not match the given text. Please try again.

Already a member? Sign In

0 Comments