Bangladeshi Broadsheet

One stop web portal for Bangladeshies in Australia

Next Text Post New Entry

I got myself back after walking 7.5 KM

Posted by Mohammad Hassan on May 1, 2013 at 7:30 AM

সকালে বাসে করে অফিস যাবো, জানতাম। রাস্তার ওপার থেকেই দেখলাম বাস চলে গেল। মিস দিয়েই শুরু। সারাদিন ৬ ঘন্টা ক্লাস-সেমিনার যা রোজকার রুটি-রুজি।

অনেক দিন পর মেলবোর্ন সেন্ত্রাল থেকে হপার্স ক্রসিং ট্রেনে ফিরলাম। ছয়টা একের বাস। এইটাও মিস। ২৩ এ আবার। বউ ফোন দিল। কথা বলতে বলতেই; সামনে থেকে ২৩ এর বাসটা চোখের সামেনই চলে গেল। ফোনে বলেছি 'বাসেই আসছি, তোমাকে নিতে আসতে হবে না'।

পরবর্তী বাস ৭ টা এক। এরই মধ্যে ২০ মিনিট প্রতিক্ষায় নোট করেছি কত কি কাজ বাকি। আজকাল বড্ড অন্যমনস্ক থাকি। কাজের লিস্টের থেকেও মনটা দ্রুত চলে-তাই খেয়াল রাখতে পারি না।

আবারো ফোন দিয়ে বউকে আসতে বলতে ইচ্ছে করলো না। আবার বাসের জন্যে হুদাই বসতে থাকতে অসয্য লাগবে। বহুদিন আগে লিখেছিলাম 'যে নিয়ম ভাঙ্গলে আবারো নিজেকে চেনা সহজ, আমাকে সেই দলে ফেলো'।

হপার্স ক্রসিং থেকে বাসা বেশি দুরে নয়।মোটে সাড়ে সাত কিলো। হেটেই রওনা দিব- ভেবেই শুরু করে দিলাম ছয়টা পয়্ত্রিশে। একটা লাপ্টপের ব্যাগ, ভারী জাকেট আর হাতে এম এক্স। চেনা রাস্তা তাই ভাবতে ভালো লাগলো 'এইতো চলে যাব' ।

কিন্তু যখন অয়েরাবি প্লাজা দারুন ভাবেই না দেখা হয়েই ছিল তখন একটু গাবড়ে গেলাম বটে। হাতের এম এক্স শক্ত করে ধরতে লাগলাম। সময়ে সময়ে রাস্তা পার হতে যে দৌড়টুকু দিলাম তাই যেন আমকে ৩০ সেকেন্ডে আগিয়ে নিয়ে ফের উজ্জীবিত করতে থাকলো।

যখন শুরু করেছিলাম শীত লাগছিল। একটু পরেই ঘামতে লাগলাম।হুডি ফেলে দিলাম। জাকেটকে বেশ ভারী মনে হতে লাগলো। কিন্তু কিছু দূর যেয়েই আবার ঠান্ডা লাগলো। সুতরাং কোথাও যাবার সময় যতই ভাবুন না কেন কাজ করলে ঘেমে যাবেন - তাই এইসব উটকো যামেলা না থাকায় ভালো - সেই ভাবনাটা ঠিক নাও হতে পারে। বিশ মিনিটের মাথায় প্লাজার লাইট দেখে যে আনন্দ পেলাম তা ঠিক বোজানো কঠিন এখন।

পেডেস্ত্রিয়ান লাইটে এ গিয়ে ৩ মিনিট হুদায় আটকে থেকে মনে হচ্ছিল আমি হয়তো আর সাতটা একের বাসের আগে বাসায় পৌছতে পারব না। কিন্তু একটু পর মনে হলো ওইটুকু থেমে আমার নতুন শক্তি,নতুন উদ্দম অর্জিত হয়েছিল।

রাস্তায় খেয়াল করে দেখেছেন নিশ্চয়ই- অনেকেই আপন মনে কথা বলে। আজ আবার বুযলাম মানুষ বেশিক্ষণ একলা থাকতে পারে না বলেই হয়তো একটা সময়ে নিজে কথা বলা শুরু করে। আমি বেসুরো কন্ঠে গানের সুর ধরলাম। তাতে বেশ লাভ হলো। কোনো এক বাসার ভেতরের কুকুর যে আওয়াজ দিল তাতে একটু দৌড়ে নিলাম।আরও যেনো একটু বাসার কাছে পৌছালাম!

এই কথা বা গান এবং দ্রুত হাটায় আপনার যা হবে তার নাম- তৃষ্ণা। আমি খুব একটা পানিপ্রেমিকনই । এখন মনে হলো -ইসস শুভ থাকলে হয়তো বলতো 'এই পানি খাবে".

আনিক দিন হাটি না। হাটু ব্যথা করতে লাগলো।মনে হলো শুক্রবারে অনেক মুরুব্বিকে দেখেছি হেটেই দূরে কোথাও নামাজ পড়তে চলে যান (বাসায় কেও না থাকলে)। আর আমি তো নওজোয়ান। আরো মনে হলো আরে আমিতো বাঙালি, ব্যাপার না।

যখন দীর্ঘ পথ হাটার থাকে- পরিচিত পথে চেনা কিছু পরলেই মনে হয় এইতো চলে এলাম। নাটকের মত সাদা কাপড়ের কেও আয়নায় না এলেও এইরকম যেকোনো পজিটিভ ভাবনা সাথে থাকলে ঠেকায় কে? ভাবনা আমার বহু পুরানো বন্ধু।কোনো দিন ছাড়ে নাই, যাবেও না।

একটু পর পায়ের পাতা ব্যাথা করতে থাকলো। আর তার কিছুক্ষণ পরেই আমি যেন বেশ ফুরফুরে মেজাজে ফিরে এলাম। একট হেভি জোস অনুভব করলাম। আসলে কেষ্ট যদি খুব আরাধ্য হয় তবে ক্ষণিক কষ্ট শুধু ভয় দেখাবার, কিন্তু পরাজিত করবার মত নয়।

হা ভয় পেয়েছি যখন বাসার কাছে খালের উপর ব্রিজটা পার হচ্ছিলাম। রোজ রাতে ভূত এফ এম শোনা আমার খুব বাতিক এখন। মনে হলো কেউ পা ধরে টান দিবে।

শুরু করে ছিলাম পায়ের স্টেপ গুনা দিয়ে। দুইশোর পরে আপন মনেই বলতে থাকলাম 'রাব্বির হাম হুমা কামারাব্বা ইয়ানি ছাগিরা'।

একটু পর মনে যা গালিই এশেছে তাও দিলাম। গানও গাইলাম। একলা থাকলে আর সবাই কি করে তাও জানতে মন চাইছিল বটে।

এক ঘন্টা ১০ মিনিট পর বাসায় এসে একু সুন্দর হাসি দিয়ে বউকে ক বললাম আমি হেটে এসেছি - 'আবার আমাকে ফেরত পেলাম'।

এইটুকু কষ্ট করে পড়ে থাকলে আর যদি পুরানো কিছু স্পিরিট ফেরত পেয়ে থাকেন -মন্দ নয়। কিন্তু যারা বললেন এইটা কিছু একটা হইলো? তাদের জন্যে - হা আমার জন্যে হইলো। আপনি আপনার জন্যে ভালো কিছু একটা হওয়ায় নেন। ভালো থাকুন।

Categories: Japito Jibon

Post a Comment

Oops!

Oops, you forgot something.

Oops!

The words you entered did not match the given text. Please try again.

Already a member? Sign In

0 Comments